1. [email protected] : Joyanta Goswami : Joyanta Goswami
  2. [email protected] : Developer :
  3. [email protected] : News Point : News Point
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন

নিউজ পয়েন্ট সিলেট

বুধবার, ১৯ মে, ২০২১

পাঁচ ছাত্রলীগ নেতা’কে ইচ্ছেমতো কোপাল কিশোর গ্যাং


নিউজপয়েন্ট সিলেট ডেস্কঃ কিশোর গ্যাং লিডার শাহাবুদ্দিন শিহাব ও তার সহযোগীরা ছাত্রলীগ নেতা রাহাত মৃধা, তার ভাই ফারহাদ মৃধা ও বন্ধু বেলাল উদ্দিন বাপ্পিসহ পাঁচজনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আমতলী পৌরসভার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে এ হামলার ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত রাহাত মৃধা ও ফরহাদ মৃধাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন।

জানা গেছে, সোমবার তুচ্ছ আমতলী সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী রাহাত মৃধার বন্ধু বেলাল হোসেন বাপ্পির সঙ্গে কিশোর গ্যাং সদস্য ইমরান মোল্লার বিরোধ হয়। ওই বিরোধ মীমাংসার জন্য মঙ্গলবার রাতে বন্ধুর পক্ষ হয়ে রাহাত মৃধা কিশোর গ্যাং সদস্য ইমরানকে ফোন দেয়।

ইমরানের ফোন কিশোর গ্যাং লিডার শাহাবুদ্দিন শিহাব কেড়ে নিয়ে রাহাতকে হাত কেটে নেয়ার হুমকি দেয় বলে দাবি ছাত্রলীগ নেতা রাহাত মৃধার।

এ বিষয়টি তাৎক্ষণিক মীমাংসার জন্য ওই রাতেই ছাত্রলীগ নেতা রাহাতের মামা মো. সেলিম তাদের আমতলী কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে ডেকে নেন। মামার ডাকে রাহাত মৃধা তার ভাই ফরহাদ মৃধা ও বন্ধু বেলাল হোসেন বাপ্পি ঈদগাহ ময়দানে যান।

ওই ময়দানে ওতপেতে থাকা কিশোর গ্যাং লিডার মো. শাহাবুদ্দিন শিহাব, ইমরান মোল্লা, নোমান মোল্লা, মিরাজুল ইসলাম মিরাজ ও মেহেদীসহ ১০-১৫ জন ছাত্রলীগ নেতা রাহাত, তার ভাই ফরহাদ, মামা সেলিম, বন্ধু বেলাল হোসেন বাপ্পি ও কালুকে চাপাতি, হাতুড়ি ও রামদা দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।

কিশোর গ্যাং লিডার শাহাবুদ্দিন শিহাব ও তার সহযোগীদের হাতুড়িপেটা ও রাম দায়ের কোপে রাহাত মৃধা ও তার ভাই ফরহাদ মৃধা গুরুতর জখম হন। খবর পেয়ে কাউন্সিলর মো. রিয়াজ উদ্দিন মৃধা ঘটনাস্থলে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় রাহাত মৃধা ও তার ভাই ফরহাদ মৃধাসহ আহতদের উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। ওই হাসপাতালে গুরুতর আহত দুই ভাইকে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ওই রাত সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতালে গিয়ে আহতদের দেখে আসেন।

বুধবার আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা গেছে, রাহাত মৃধার মাথায় ব্যান্ডেজ এবং তার ভাই ফরহাদের সারা শরীরে রক্তাক্ত জখমের চিহ্ন।

আহত ছাত্রলীগ নেতা রাহাত মৃধা বলেন, কিশোর গ্যাং লিডার মো. শাহাবুদ্দিন শিহাব, ইমরান মোল্লা, নোমান মোল্লা, মিরাজুল ইসলাম মিরাজ ও মেহেদীসহ ১০-১৫ জন কিশোর সন্ত্রাসী আমাকে কুপিয়েছে এবং আমার ভাইকে চাপাতি ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের রক্ষায় আমার মামা সেলিম, কালু এগিয়ে গেলে তাদের মারধর করেছে। আমি এ ঘটনায় তাদের শাস্তি দাবি করছি।

এ বিষয়ে কিশোর গ্যাং লিডার শাহাবুদ্দিন শিহাব মারধরের কথা অস্বীকার করে বলেন, একটু ঝামেলা হয়েছে।

আমতলী পৌরসভার কাউন্সিলর মো. রিয়াজ উদ্দিন মৃধা বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রাহাত, ফরহাদ, বাপ্পিসহ আহতদের উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করেছি।

তিনি আরও বলেন, কিশোর গ্যাং লিডার শাহাবুদ্দিন শিহাব, ইমরান মোল্লা ও তার সাঙ্গোপাঙ্গদের অত্যাচারে সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ। দ্রুত এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তিনি।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, রাহাতের মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত এবং ফরহাদের সারা শরীরে রক্তাক্ত জখমের চিহ্ন রয়েছে।

আমতলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রণজিত কুমার সরকার বলেন, খবর পেয়ে হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়। এ বিষয়ে অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত দিন
এই বিভাগের আরও খবর

সিলেটের সর্বশেষ
© All rights reserved 2020 © newspointsylhet