1. [email protected] : Joyanta Goswami : Joyanta Goswami
  2. [email protected] : Developer :
  3. [email protected] : News Point : News Point
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন

নিউজ পয়েন্ট সিলেট

শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২১

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বোরো ধানের বাম্পার ফলন, আনুমানিক মূল্য ২৫০ কোটির উপরে


নিউজপয়েন্ট সিলেট ডেস্কঃ সিলেটে’র সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জে দেখার হাওর’ ও সাংগাই হাওর, জামখলা হাওর, খাই হাওর, কাউয়াজুরী হাওর, পিপড়াকান্দি হাওরসহ ছোট বড় ১৮ টি হাওরে বোরো ফসল ফলেছে।

ইতিমধ্যে ধান কাটা রয়েছে প্রায় শেষের পথে। হওরের বড় চ্যালেঞ্জ সবসময় প্রকৃতির খেয়ালিপনার কাছে হেরে গিয়ে মাঝে মাঝে জিতেও যায় এ এলাকার কৃষি জনপদ। যখন প্রাকৃতিক বন্যা ও শিলাবৃষ্টিজনিত কারণ ফসল নষ্ট হয়ে যায় তখন হাওরবাসীর মনে হাহাকার পড়ে। কিন্তু এবার মওসুম ভালো থাকায় কাঙ্খিত ফলন হয়েছে হাওরে। হলুদরঙা ধানের সাগরে রূপ নিয়েছে উপজেলার সবগুলো হাওরে। সেখানে কাস্তে, ওকন, ঠুকরি-বস্তা হাতে ব্যস্ত লাখো কিষাণ-কিষাণী। শ্রমিক নিয়ে হাওরে ব্যস্ত কৃষক। তাদের স্ত্রী কন্যারা ব্যস্ত ধানখলায় ধান শুকানো ও গোলায় তোলা নিয়ে মগ্ন।

চোখ মেললেই দেখা যায় হাওরের চারদিকে এখন বিস্তৃত ধানক্ষেতে হাউয়ার ঢেউ। দৃষ্টির চত্বরে কেবলই সোনালী পাকা ধান আর ধান। কখনো কখনো কালবৈশাখির চোখরাঙানি আর শিলার রূপ দেখে বিচলিত হচ্ছেন কৃষক। বর্তমানে ধান তোলার একটা উৎসব চলছে হাওরে। পরিশ্রমের নোনাঘাম ঝরানো একমাত্র ফসল গোলায় তোলতে এখন লাখো কৃষক অস্তির সময় পার করছেন হাওরে। জেলা এবং দেশের বিভিন্ন স্থান থেকেও মওসুমি শ্রমিকরা ধান কাটতে এসেছেন হাওরে। ধান কেটে তারা বছরের খোরাক সংগ্রহ করে ফিরবেন বাড়ি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার বেশ কয়েকটি হাওরে ধান কাটা প্রায় শেষের দিকে রয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় লাভবান হবেন এমনটা আশা কৃষকের। এই মুহুর্তে ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষাণ-কৃষাণীরা।  আর কিছুদিন গেলেই ধান গোলায় তুলা শেষ হবে এ উপজেলায়। তাই কৃষক ও শ্রমিকের মুখে সোনালী ফসলের হাসির ঝিলিক দেখা দিয়েছে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, চলতি বছরে এ উপজেলায় ২২ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও বেশি।  ধান উৎপন্ন হবে এক লক্ষ ১০ হাজার মেট্রিকটন। যার বাজার মূল্য হবে ২৫০ কোটি টাকার উর্ধে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সজীব আল মারুফ বলেন, ইতিমধ্যেই হাওরের বেশিরভাগ ধান কাটা শেষ। উপজেলায় ধান কাটার শ্রমিকের পাশাপাশি হারভেস্টার (ধান কাটার মেশিন) রযেছে। আমরা আশা করছি অল্প কিছুদিনের মধ্যেই সব ধান গোলায় তুলা শেষ হবে। এবং কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে কাটা-মাড়াইয়ের কাজ শেষে কৃষকরা ভালোভাবেই ফসল ঘরে তুলে লাভবান হবেন।

 

নিউজপয়েন্ট সিলেট/এস শর্মা

আপনার মতামত দিন
এই বিভাগের আরও খবর

সিলেটের সর্বশেষ
© All rights reserved 2020 © newspointsylhet